সর্বশেষ খবর
বাংলাদেশ, শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩

আপনার জিহ্বার রঙ দেখে বুঝেতে পারবেন শরীরে কোন রোগ বাসা বেঁধেছে কি?

পাহাড় কন্ঠ ডেস্ক
দক্ষিণ বাংলা মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০
আপনার জিহ্বার রঙ দেখে বুঝেতে পারবেন শরীরে কোন রোগ বাসা বেঁধেছে কি?

জিহ্বার রঙ দেখে- সাধারনত ডাক্তার জিহ্বা দেখে রোগীকে পরিক্ষা নিরীক্ষা করেন। কারণ জিহ্বা দেখেই বোঝা যায় ঠিক কোন রোগে আ’ক্রা’ন্ত রোগী। জিহ্বা স্বাস্থ্য সম্পর্কে অনেক কিছুই বলতে সক্ষম।

জিহ্বার আকার, গঠন এবং রঙ এর ওপর ভিত্তি করেই স্বাস্থ্য সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ অনেক কিছুই বোঝা সম্ভব। তবে এর জন্য আপনাকে সকাল বেলা দাঁত ব্রাশ করার আগেই প্রাকৃতিক আলোতে জিহ্বাটি পরীক্ষা করে দেখতে হবে।

আর দিনের অন্য কোনো সময় পরীক্ষা করতে চাইলে কোনো খাবার খাওয়ার অন্তত এক ঘণ্টা পর তা করতে হবে। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক কোন রঙয়ের জিহ্বা কি সংকেত দেয়-

১. নীল: কি’ডনি রোগের লক্ষণ হলো জিহ্বার রঙ নীল হওয়া।

২. ফ্যাকাশে জিহ্বা: ভিটামিন এবং খনিজ পুষ্টি উপাদানের ঘাটতি হলে জিহ্বা ফ্যাকাশে হয়ে যায়।

৩. সাদা: শরীরে পানিশূন্যতা দেখা দিলে জিহ্বার রঙ সাদা হয়ে যায়। এছাড়া ছত্রাক সংক্রমণ এবং ফ্লুর লক্ষণও হতে পারে এটি।

৪. ধুসর: হজম প্রক্রিয়ার কোনো রোগ হলে এমন রঙ হয় জিহ্বার।

৫. ভারী সাদা আস্তরণ: জিহ্বার উপরিভাগে ভারী সাদা আস্তরণ পড়লে বুঝবেন দে’হে কোনো বিষক্রিয়া হয়েছে বা সংক্রামক রো’গে আক্র’মণ করেছে।

৬. হালকা গোলাপি: জিহ্বার আদর্শ রঙ হলো হালকা গোলাপি। এই রঙের জিহ্বা স্বাস্থ্যকর দে’হের নির্দেশক। একটি স্বাস্থ্যকর দেহের জিহ্বা দেখতে এমনই হয়।

৭. লাল: লাল রঙের জিহ্বা আপনি যেকোনো সং’ক্রামক রো’গে আ’ক্রান্ত হয়েছেন তার নির্দেশক। এ থেকে আরো বুঝা যায় যে দেহে বা রক্তে কোনো ধরনের প্রদাহ সৃষ্টিকারী প্রক্রিয়া চলছে।

৮. উজ্জ্বল লাল: হৃ’ৎপি’ণ্ডের কোনো রো’গের লক্ষণ উজ্জ্বল লাল জিহ্বা। অনেক সময় এটি আপনার র’ক্তে কোনো রোগ থাকারও লক্ষণ হতে পারে।

৯. হলুদ: পাক’স্থলী বা লি’ভারে কোনো সমস্যা হলে জিহ্বার রঙ হলুদ হয়।

১০. বেগুনি বা র’ক্তবর্ণ: ফুস’ফুস এবং হৃ’দরোগ থাকলে জিহ্বার এমন রঙ হয়।

১১. বাদামি আস্তরণ: ফুস’ফুসের কোনো রোগের লক্ষণ এটি।

১২. হলুদ আস্তরণ: হজম প্রক্রিয়ায় কোনো সমস্যা হলে এমন আস্তরণ পড়ে।

১৩. ধুসর আস্তরণ: গ্যাস্ট্রি’টাইটিস এবং পেপটিক আল’সারের লক্ষণ এটি।

১৪. কালো রঙ: সাধারণ কারো কারো জন্ম থেকেই এ রকম রঙ থাকতে পারে। তবে যদি হঠাৎ কালো রঙ দেখেন তা হলে বুঝবেন এক সঙ্গে বিপুল পরিমাণ ব্যাক্টে’রিয়া জমা হয়েছে জ্বিবে। তবে শুরু থেকেই এমনটা হবে না, প্রথমে হলুদ, তার পরে ব্রাউন, তার পর কালো রঙ হবে।

১৫. হলুদ রঙ: জ্বিবের রঙ সাধারণ এমন হয় না। যখন হবে, তখন বুঝবেন লিভারে বড় সমস্যা রয়েছে। সম্ভবত জ’ন্ডিস হয়ে গেছে। দেরি না করে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

১৬. পার্পল রঙ: দীর্ঘ দিন ধরে শরীরে কোনো সমস্যা থাকলে জ্বিবের রঙ পার্পল হতে শুরু করেন। এটার অর্থ শরীরে ভিটা’মিন বি-এর ভীষণ ঘাটতি রয়েছে।

মনে রাখবেন, শরীরে অন্যতম গুরু’ত্বপূর্ণ অ’ঙ্গ হল জ্বিব। তবে আমরা অনেকেই এর খেয়াল রাখি না। প্রতিদিন জ্বিব পরিষ্কার রাখলে অনেক রোগের হাত থেকে মুক্তি পাওয়া যেতে পারে। তাই রোজ সকালে দাঁত মাজার সময়ই জ্বিব ভালো করে পরিষ্কার করে নিন। তবেই সুস্থ থাকবেন।

যে ১২ খাবার আজীবন যৌবন ধরে রাখবে

যৌবন ধরে রাখতে আমরা কত কিছুই না করে থাকি। সকলেই চায় আজীবন যৌবন ধরে রাখতে। সুস্থ থাকতে এবং তারুণ্য ও যৌবন ধরে রাখতে পুষ্টিকর খাবারের কোনো বিকল্প নেই। নিজেকে সুস্থ-সবল রাখতে পুষ্টিকর খাবারের দিকে নজর দেয়া দরকার। এমন কিছু খাবার আছে যা নিয়ম করে খেলে আপনার যৌবন থাকবে অটুট।

জেনে নিন আজীবন যৌবন ধরে রাখবে যে ১২ টি খাবার সম্পর্কে-

দই: দই আমাদের অনেকের কাছে খুব প্রিয় একটি খাবার। দই মেদ ও কোলেস্টেরল কমাতে সহায়তা করে। যারা যৌবন ধরে রাখতে চান তাদের জন্য আশার কথা হচ্ছে নিয়মিত দই খান। দইয়ে প্রচুর প্রোটিন ও ক্যালসিয়াম আছে যা শরীরের গঠন ভালো রাখে এবং হাড়ের ক্ষয় রোধ করে। দই বয়সজনিত কারণে হওয়া রোগগুলো প্রতিরোধ করে। এছাড়াও দই ত্বককে রাখে বলিরেখা মুক্ত। তাই যৌবন ধরে রাখতে চাইলে প্রতিদিন দই খান।

সামুদ্রিক মাছ: সামুদ্রিক মাছ যৌবন ধরে রাখতে সহায়ক। দীর্ঘ দিন যৌবন ধরে রাখতে চাইলে নিয়মিত খাবার তালিকায় লাল মাংস বাদ দিয়ে সামুদ্রিক মাছ রাখুন। তাতে শরীরে প্রয়োজনীয় প্রোটিনের চাহিদা পূরণ হয়ে যাবে এবং যৌবন ধরে রাখা যাবে বহুদিন।

মিষ্টিকুমড়ার বিচি: এতে আছ প্রচুর সাইটোস্টেরোল। এটি পুরুষের দেহে টেসটোস্টেরন হরমোনের ভারসাম্য রক্ষা করে। এর অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং ফ্যাটি এসিড পুরুষের শক্তি বাড়ায়। পুরুষের সক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়ক।

কলা: কলার রয়েছে ভিটামিন এ, বি, সি ও পটাশিয়াম। পটাশিয়ামের অভাবে ত্বক রুক্ষ হয়, কলা সেই পটাশিয়ামের অভাব পূরণ করে দেয়। ভিটামিন বি ও পটাশিয়াম মানবদেহের যৌনরস উৎপাদন বাড়ায়। আর কলায় রয়েছে

ব্রোমেলিয়ানও যা শরীরের টেস্টোস্টেরনের মাত্রা বাড়াতে সহায়ক এবং যৌবন ধরে রাখতে সহায়ক।

আমলা: আয়ুর্বেদ চিকিৎসায় একে পুরুষের শারীরিক সক্ষমতা মন্ত্র বলে গণ্য করা হয়। পুরুষের শরীরের সঠিক তাপমাত্রা বজায় রাখতেও দারুণ সহায়ক।

ফলমূল: ফলে আছে প্রচুর ফাইবার, ভিটামিন ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা শরীরে পুষ্টি যোগায় ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। তাই যৌবন ধরে রাখতে চাইলে নিয়মিত ফল খান।

রঙিন শাক-সবজি: রঙিন শাক-সবজিতে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন যা শরীরের চাহিদা মেটায় এবং শরীরকে সুস্থ্ রাখতে সহায়তা করে। নিয়মিত রঙিন শাকসবজি খেলে আপনার যৌবন থাকবে অটুট।

কমলালেবু: কমলালেবু খাওয়া শরীরের জন্য খুবই ভাল। কারণ এতে অনেক ভিটামিন-সি থাকে। ত্বক টানটান রাখতে কমলালেবু সাহায্য করে।

অলিভ অয়েল: অলিভ তেল আপনার যৌবনকে ধরে রাখতে সাহায্য করবে। রান্নায় অলিভ অয়েল ব্যবহার করলে শরীরে ক্ষতিকর কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমে যায় এবং সহজে মেদ জমে না। এছাড়াও প্রতিদিন ঘুমাতে যাওয়ার আগে ত্বকে অলিভ অয়েল ম্যাসাজ করে ঘুমালে ত্বকে বলিরেখা পরে না সহজে। ফলে দীর্ঘ দিন যৌবন ধরে রাখা যায়।

ডার্ক চকলেট: যারা চকলেট ভালোবাসেন তাদের জন্য ভালো খবর হলো ডার্ক চকলেট বয়স ধরে রাখতে সহায়তা করে। ডার্ক চকলেটে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আছে। তাই যারা নিয়মিত প্রতিদিন ছোট এক টুকরা ডার্ক চকলেট খান তারা দীর্ঘদিন যৌবন ধরে রাখতে পারেন।

স্ট্রবেরি: স্ট্রবেরি হোক কিংবা ব্ল্যাকবেরি, সবকটিই আপনার শরীরের জন্য খুবই ভালো। এতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি থাকে। আপনার ত্বককে করে রাখবে সতেজ।

রসুন: রসুনে রয়েছে এলিসিন নামের উপাদান যা দৈহিক ইন্দ্রিয়গুলোতে রক্তের প্রবাহ বাড়িয়ে দেয়। দৈহিক সমস্যা থাকলে এখনই নিয়মিত রসুন খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন।

নিজের যৌবন ধরে রাখতে পুষ্টিকর খাবারের প্রতি জোর দেয়া দরকার। উপরিউক্ত খাবার গুলি আপনার জীবন ও যৌবনকে ধরে রাখবে আজীবন। তাই নিয়মিত পুষ্টিকর খাবার খান আর সর্বদা নিজেকে হাসি-খুশি রাখুন, বিষণ্ণতা কোনোভাবেই ধারে-কাছে ভিড়তে দেবেন না।


আরো নিউজ