জিয়ার খেতাব বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ : বার সম্পাদক

ডেস্ক রিপোর্ট
দক্ষিণ বাংলা শুক্রবার, ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
জিয়ার খেতাব বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ : বার সম্পাদক

জিয়াউর রহমানের ‘বীর উত্তম’ খেতাব বাতিলের সিদ্ধান্তকে অবৈধ ও আইন বহির্ভূত বলে মন্তব্য করেছেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল। বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির শহীদ শফিউর রহমান মিলনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

রুহুল কুদ্দুস কাজল বলেন, স্বাধীনতার ৫০ বছর পর একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার খেতাব বাতিলের সিদ্ধান্ত খুবই উদ্বেগের এবং দুঃখজনক। ১৯৭১ সালে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে জিয়াউর রহমানের যুদ্ধ পরিকল্পনা, যুদ্ধ কৌশল, যুদ্ধ পরিচালনা ও তার বাস্তবায়ন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

তিনি আরও বলেন, পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিপক্ষে সশস্ত্র প্রতিরোধ গড়ে তোলা এবং নিজের জীবন বাজি রেখে রণাঙ্গনে যুদ্ধ করা একজন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে হেয় প্রতিপন্ন করা মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা ও দেশপ্রেমের চেতনা পরিপন্থী এবং জাতির কলঙ্কস্বরূপ। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এ সিদ্ধান্ত বাতিল করবেন বলে প্রত্যাশা করেন রুহুল কুদ্দুস।

গত ৯ ফেব্রুয়ারি জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল (জামুকা) জিয়াউর রহমানের খেতাব বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয়। এছাড়া বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনি ও মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি শরিফুল হক ডালিম, নুর চৌধুরী, রাশেদ চৌধুরী ও মোসলেহ উদ্দিন খানের মুক্তিযোদ্ধার খেতাব বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এর আগে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ‘বীর উত্তম’ খেতাব বাতিলের প্রতিবাদে সুপ্রিমকোর্টে বিক্ষোভ সমাবেশ করেন জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম। সংগঠনের সদস্য সচিব ফজলুর রহমান ও সুপ্রিম কোর্ট বার ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক গাজী কামরুল ইসলাম সজলের নেতৃত্বে শতাধিক আইনজীবী সুপ্রিম কোর্ট বার ভবনে বিক্ষোভ সমাবেশ করেন।

এতে অংশ নেন আইনজীবী আবেদ রাজা, সুপ্রিমকোর্ট বারের সম্পাদক ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল, মোহাম্মদ আলী, ব্যারিস্টার মনিরুজ্জামান আসাদ, মনির হোসেন, মাহমুদুল আরেফীন, রোকনউজ্জামান সুজা, ব্যারিস্টার এহসানুর রহমান প্রমুখ।


আরো নিউজ