বাউফলে অবৈধ ইটভাটা বন্ধ করে দেওয়ার এক ঘন্টা পর আবার চালু

রিয়াজ মাহমুদ, পটুয়াখালী প্রতিনিধি
দক্ষিণ বাংলা রবিবার, ৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
বাউফলে অবৈধ ইটভাটা বন্ধ করে দেওয়ার এক ঘন্টা পর আবার চালু

পটুয়াখালীর বাউফলে আদাবাড়িয়া ইউনিয়নের মহাশ্রাদ্দি গ্রামে ‘হানিফ উল্লাহ অটো ব্রিকস কোম্পানি লিমিটেড’ নামে একটি ইটভাটায় অবৈধভাবে ড্রাম চিমনি বসিয়ে জ্বালানি হিসেবে কয়লার পরিবর্তে কাঠ পুড়ে ইট তৈরীর করার দায়ে আজ শনিবার বেলা ১১ টায় ভাটাটির কার্যক্রম বন্ধ করে দেন ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারী কমিশনার(ভূমি) মোঃ আনিচুর রহমান বালী। কিন্তু ভ্রাম্যমান আদালতের টিম চলে আসার এক ঘন্টা পর আবার ইটভাটার কার্যক্রম চালু করে দেয় ভাটাটির মালিক ওই গ্রামের বাসিন্ধা মোঃ হানিফ উল্লাহ।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. আনিচুর রহমানের বালীর নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালতের একটি দল ওই ইটভাটায় অভিযান চালান এবং ভাটাটির কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়া হয়।

স্থানীয় কয়েকজন অভিযোগ করেছেন,ভ্রাম্যমান আদালতের দলটি চলে যেতে না যেতেই এক ঘন্টা পর দুপুর ১২ টার দিকে ফের ভাটাটির কার্যক্রম শুরু করা হয়।
খবর পেয়ে দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে সরেজমিনে দেখা যায়,ভাটাটির মালিক হানিফ উল্লাাহর উপস্থিতিতে কয়েকজন শ্রমিক ইটভাটার কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন।ভ্রাম্যমান আদালতের বন্ধ করে দেওয়া ড্রাম চিমনি দিয়ে কালো ধোয়া বেরুচ্ছে। পাশেই করাতকলে কাঠ চেরাই করছেন কয়েকজন শ্রমিক।

সাংবাদিকদের উপস্থিতি দেখে তিনি (হানিফ উল­াহ) ক্ষুব্ধ হয়ে বলেন, এ নিয়ে লেখালেখি করে কোনো লাভ হবে না। কিছু আর্থিক ক্ষতি হবে। তাতে ভাটা বন্ধ হবে না।একপর্যায়ে তিনি সাংবাদিকদের দেখে নেওয়ারও হুমকি দেন।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আনিচুর রহমান বালী বলেন, পানি দিয়ে ভাটার আগুন নিভানো হয়েছে এবং ভাটার কার্যক্রম বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। চলে আসার পর মুঠোফোনে এক ব্যক্তি ভাটাটি চালু করার কথা জানিয়েছিলেন। তবে ফের ভাটাটি চালু করলে পুনরায় অভিযান চালানো হবে এবং আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয় হবে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জাকির হোসেন বলেন,‘কোনোভাবেই অবৈধভাবে ওই ইটভাটাটি চলতে পারবে না।এ ব্যাপারে শিগগির প্রয়োজনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’


আরো নিউজ