ভাষা শহীদদের স্মরণ করল ঢাবি অ্যালামনাইরা যুক্তরাজ্যের

দক্ষিণ বাংলা
দক্ষিণ বাংলা বুধবার, ২২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

যুক্তরাজ্যে বসবাসরত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যালামনাইদের সংগঠন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাব ইউকের উদ্যোগে ৫২’র ভাষা শহীদদের স্মরণে পালিত হয়েছে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস।

শনিবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) পূর্ব লন্ডনের বার্কিং রিপল সেন্টার আয়োজিত শহীদ দিবসের আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মুক্তিযোদ্ধা ও যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ শরীফ রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনে ভাষা সৈনিক ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত, ভাষাবিদ ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভূমিকা ও ভাষা শহীদ সালাম, বরকত, রফিক ও জব্বারের আত্মত্যাগের কথা শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন।

তিনি বলেন, উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে চাপিয়ে দেওয়ার ষড়যন্ত্রের জোরালো প্রতিবাদ প্রথম উচ্চারিত হয়েছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকেই।

অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী ও ব্রিটেনের ব্যারিস্টার মোজাম্মেল হোসেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাব ইউকের পরিচালনায় পরিষদের সদস্য সাংবাদিক তানভীর আহমেদের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাবের পরিচালনা পরিষদের সদস্য থার্ড সেক্টর কনসালটেন্ট বিধান গোস্বামী। এছাড়া সংগঠনের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ব্যারিস্টার চৌধুরী হাফিজুর রহমান ও ব্যারিস্টার কাজী আশিকুর রহমানসহ অন্যরা।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, ১৯৫২ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক ও কর্মচারীরা যে প্রতিবাদের সূচনা করেছিলেন, সেই আন্দোলন পরবর্তীতে সারা দেশে ছড়িয়ে পড়েছিল। ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে মুক্তিযুদ্ধ পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা যেভাবে নেতৃত্ব দিয়েছেন তেমনি বিদেশে বসেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যালামনাইরা দেশের জন্য কাজ করতে নেতৃত্বের ভূমিকা রাখছেন। লন্ডনে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও বসন্ত উৎসব উদযাপনের মধ্য দিয়ে ব্রিটেনে বেড়ে উঠা নতুন প্রজন্ম তাদের মাতৃভাষা, সংস্কৃতি আর ঐতিহ্যের সাথে পরিচিত হওয়ার সুযোগ পাবেন বলে মনে করেন বক্তারা।

দিনের শুরুতে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানিয়ে জাতীয় সঙ্গীতের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সূচনা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের যুক্তরাজ্যে বসবাসরত শিল্পীরা। একুশে গানের রচয়িতা প্রয়াত আবদুল গাফফার চৌধুরীর লেখা অমর সঙ্গীত, ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি’ গানটি পরিবেশন করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রয়াত অ্যালামনাই ও প্রখ্যাত এ সাংবাদিককে শ্রদ্ধা জানায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাব ইউকে। অনুষ্ঠানে ‘তোমাকে উপড়ে নিলে বলো তবে কী থাকে আমার?’ আবৃত্তি পরিবেশন করে ব্রিটেনের আবৃত্তি সংগঠন বর্ণন।

এছাড়া বাংলাদেশের প্রখ্যাত ভিজুয়াল আর্টিস্ট প্রিমা নাজিয়া আন্দালিব মুক্তিযুদ্ধে বীরাঙ্গনাদের আত্মত্যাগের বিষয়টি চিত্রকলার মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলেন উপস্থিত দর্শকদের মাঝে। পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের সাবেক শিক্ষার্থী শিল্পী মাসুদ মিজানের মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক একক চিত্র প্রদর্শনীর ব্যবস্থাও ছিল। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ, ভাষা ও বসন্ত শীর্ষক চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়া শিশু কিশোরদের তিনটি বিভাগে সেরা নয়জনকে পুরস্কৃত করা হয়। চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও বসন্ত উৎসবের সার্বিক সহযোগিতা করেন পলি জাহান, ফাতেহা পলি, ফাতেমা লিলি, রথিন্দ্র গোস্বামী, নিখিল সাহা, শায়লা শিমলা ও শামীমা খানম শিপ্রা।

অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন সঙ্গীত শিল্পী সারোয়ার ই আলম, রুপী আমীন ও আশফাক বিন রউফসহ অন্যরা। নৃত্য পরিবেশন করেন চৈতী রায়, উষারা আশাবরী রশীদ ও জয়িতা পাল। বসন্ত উৎসবের পিঠা ও সন্দেশ তৈরী করে সব অ্যালামনাইকে পরিবেশন করায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাব ইউকের পরিচালনা পরিষদের সদস্য শওকত আলী বেনু ও রেহানা আক্তারকে কৃতজ্ঞতা জানানো হয়।

বাংলাদেশ ‘ল’ অ্যাসোসিয়েশনের যুক্তরাজ্যের নবনিযুক্ত কমিটি, যারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাবের পরিচালনা পরিষদের সাথে যুক্ত রয়েছেন তাদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাব ইউকে। পরে বসন্ত উৎসবের র‌্যাফেল ড্রর বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়। র‌্যাফেল ড্রর প্রথম পুরস্কার জিতেছেন জাহিদ-পপি শাহনেওয়াজ দম্পতি। দ্বিতীয় পুরস্কার জিতেছেন নাসিমা এহসান লাবনী, তৃতীয় পুরস্কার জিতেছেন তারানা রউফ কান্তা ও চতুর্থ পুরস্কার জিতেছেন সুলতানা রশীদ নাসরিন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাবের পক্ষ থেকে র‌্যাফেল ড্র বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন পরিচালনা পরিষদের সদস্য মোহাম্মদ হারুন উর রশীদ, প্রদীপ মজুমদার, পলি জাহান, ফাতেহা পলি, আমীরুল ইসলাম শাহীন ও জাকির হোসেন স্বপন।


আরো নিউজ