সম্মিলিত পরিষদের বিজয় মানে পোশাক শিল্পের বিজয় : বাণিজ্যমন্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্ট
দক্ষিণ বাংলা মঙ্গলবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
সম্মিলিত পরিষদের বিজয় মানে পোশাক শিল্পের বিজয় : বাণিজ্যমন্ত্রী

দেশের তৈরি পোশাক মালিক ও রফতানিকারক সমিতি বিজিএমইএর আসন্ন নির্বাচনে সম্মিলিত পরিষদের প্রার্থী ফারুক হাসানকে বিজয়ী করতে পোশাক মালিকদের আহ্বান জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

তিনি বলেছেন, কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে বিজিএমইএর নেতৃত্ব দেয়ার ক্ষেত্রে ফারুকের বিকল্প নেই। গত ৩০ বছর ধরে তার ত্যাগ এ শিল্পের জন্য আশীর্বাদ বয়ে আনবে। সম্মিলিত পরিষদের বিজয় মানে পোশাক শিল্পের বিজয়।

মঙ্গলবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) রাতে হোটেল রেডিসনে আয়োজিত ‘বিজিএমইএর অগ্রযাত্রায় সম্মিলিত পরিষদ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি আব্দুস সালাম মুর্শিদী।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা কাউকে ছোট করে দেখব না। নির্বাচনে সবাই আসতে পারে। তবে শিল্পের স্বার্থে সম্মিলিত পরিষদের যোগ্য প্রার্থী ফারুক হাসানকে আমরা চাই। এ কথা শুধু আমার একা নয়, পুরো শিল্প সংশ্লিষ্টরা তাকে চায়। এ বৃক্ষটি (ফারুক) আমরা অনেক বছর ধরে চিনে আসছি।

প্যানেল লিডার ফারুক হাসান বলেন, আমি বিজয়ী হলে এ সেক্টরের জন্য, আপনাদের জন্য, দেশের জন্য আগামী দুই বছর নিজেকে উৎসর্গ করব। মেনুফেস্টু তৈরির জন্য আমাদের কাজ চলমান আছে, এমন মেনুফেস্টু করব যাতে শিল্পে সফলতা বয়ে আনবে। দেশের পোশাক শিল্পকে ব্র্যান্ডিং করাই হবে আমার বড় কাজ।

উত্তর সিটি মেয়র ও বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি আতিকুল ইসলাম বলেন, সম্মিলিত পরিষদ ইজ দ্য বেস্ট, ফারুক হাসান ইজ দ্য বেস্ট। আমরা সম্মিলিতভাবে সম্মিলিত পরিষদের প্রার্থীদের বিজয়ী করব, পোশাক খাতকে এগিয়ে নেব।

বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি একে আজাদ বলেন, বিজিএমইএ নির্বাচনে আমি কোনো প্যানেল বুঝি না, যারা শিল্পের স্বার্থে কাজ করবে তাকে আমরা বেছে নেব। আমরা দেখব কারখানার স্বার্থ বিষয়। যখন কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে দুই মাস বসিয়ে রেখে শ্রমিকের বেতন দিয়েছি। প্রধানমন্ত্রী অর্থ দিয়েছে কিন্তু এখন ব্যাংকগুলো টাকার জন্য চাপ তৈরি করছে। অনেকে অর্থ পরিশোধ করতে না পারায় কারখানা ছেড়ে দিতে চাচ্ছেন, কারখানা মালিকের এ দুঃখটা আপনাদের বুঝতে হবে। ভালো প্রতিশ্রুতি দিতে হবে এবং তার বাস্তবায়ন করতে এমন প্রার্থীকে আমরা বেছে নেব।

এফবিসিসিআইএর সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম বলেন, রফতানি খাতে সবচেয়ে বড় অবদান পোশাক খাতের, এ খাতকে ছোট করে দেখার সুযোগ নেই। ট্রেডের নেতৃত্বদানকারীরা নিজের স্বার্থের জন্য নয়, ব্যবসায়ীদের স্বার্থ নিয়ে কাজ করতে হয়। এখানে নেগোসিয়েশন আছে, অর্থনীতির জন্য কাজ করতে হয়। আগামীতে বিজিএমইএর নেতৃত্ব দেবেন ফারুক হাসান এ প্রত্যাশা।

গাজীপুর সিটি মেয়র জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমি পোশাক খাত দিয়ে উঠেছি। আমি এ খাতের উন্নয়নে কাজ করে যেত চাই। আমি পোশাক শিল্পের ট্রেড লাইসেন্স ২৪ ঘণ্টার মধ্যে দিয়ে থাকি। এ শিল্পের উন্নয়নে ভালো মানুষকে পাশে চাই। সম্মিলিত পরিষদের নেতা সেই ভালো মানুষ, আমরা তাকে পাশে চাই।

প্লাস্টিক অ্যাসোসিয়েশন বিপিজিএমইএ সভাপতি জসিম উদ্দিন বলেন, আজ মালিকরাই বেশি নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন নানা সময়ে। মালিকপক্ষের এই নির্যাতনের কথা যারা এড্রেস করে শিল্পের উন্নয়নে কাজ করবেন তাকে আমাদের নেতৃত্বে বসাতে হবে। আজকের সম্মিলিত পরিষদের নেতা ফারুক হাসানের দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতা আছে।

বিকেএমইএর সাবেক সহ-সভাপতি আসলাম সানি বলেন, কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে শত শত কারখানা বন্ধ হয়েছে। এ বন্ধ কারখানা চালুর উদ্যোগের পাশাপাশি লোনের বিপরীতে ব্যাংকের বাড়তি চাপ থেকে মালিকদের বাঁচাতে হবে।

বিকেএমইএর জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম বলেন, আরএমজির নিজেদের স্বার্থের জন্য শক্তিশালী নেতৃত্ব প্রয়োজন। আমরা এমন একজনকে বেছে নিয়েছি যিনি একজন অভিজ্ঞ, পরীক্ষিত মানুষ। আমরা শিল্পের স্বার্থে ফারুক হাসানকে চাই।

বিটিএমএর সভাপতি মোহাম্মদ আলী খোকন বলেন, আমরা সুন্দর বিজিএমইএ দেখতে চাই। যে সবার সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করতে পারবে। আমাদের লিডারশিপ হিসেবে ফারুক হাসান সেটা পারবে, এটা ব্যবসায়ীদের কথা।


আরো নিউজ