সুন্দরবন রক্ষায় শপথ নিয়েছেন বনজীবি-মৎস্যজীবিরা

মনির হোসেন,মোংলা
দক্ষিণ বাংলা সোমবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
সুন্দরবন রক্ষায় শপথ নিয়েছেন বনজীবি-মৎস্যজীবিরা

মোংলায় সুন্দরবন সুরক্ষায় শপথ নিয়েছেন বনের উপর নির্ভরশীল জনগোষ্ঠি বনজীবি-মৎস্যজীবি-জেলে-বাওয়ালী ও মৌয়ালীরা। ১৪ ফেব্রুয়ারি রবিবার সকালে সুন্দরবন দিবস উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসন, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা), ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশ, ওয়াইল্ডটিম, বাদাবন সংঘ, সুন্দরবন জাদুঘর ও পশুর রিভার ওয়াটারকিপার আয়োজিত উপজেলা পরিষদ চত্বরে বনজীবিদের শপথ বাক্য পাঠ করান এবং সুন্দরবন দিবসের কর্মসুচির উদ্বোধন করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার কমলেশ মজুমদার। সুন্দরবন দিবসে অন্যান্য কর্মসুচির মধ্যে ছিলো বিপদাপন্ন সুন্দরবন রক্ষায় র‍্যালী, মানববন্ধন, শিশু চিত্রাংকন ও রচনা প্রতিযোগিতা, পুরস্কার বিতরণ, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

রবিবার সকাল ১০টায় উপজেলা পরিষদ চত্বর হতে সুন্দরবন সুরক্ষায় র‍্যালী বের হয়ে চৌধুরী মোড়ে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন বাপা নেতা মোঃ নূর আলম শেখ, বাদাবন সংঘের নির্বাহী পরিচালক লিপি রহমান, জেলে সমিতির সভাপতি বিদ্যুৎ মন্ডল, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ হাওলাদার, ডলফিন সংরক্ষণ দলনেতা ইস্রাফিল বয়াতি, ওয়াইল্ড টিমের মোঃ সাইফুল হোসেন, ভিলেজ টাইগার রেসপন্স টিমের আব্দুল মালেক হাওলাদার, মৌয়াল ষ্টিফেন হালদার, পশুর রিভার ওয়াটারকিপার ভলান্টিয়ার মারুফ বিল্লাহ, নারীনেত্রী গীতা হালদার, কমলা সরকার প্রমূখ।

সকাল ১১টায় বিপদাপন্ন সুন্দরবন রক্ষায় সুন্দরবন প্রেমীরা মানববন্ধন করেন। মানববন্ধন চলাকালে অংশগ্রহণকারীরা ”সুন্দরবন বাঁচাও, উপকুল বাঁচাও, দেশ বাচাও”, ”সুন্দরবন বাঁচলে, বাঘ বাঁচবে”, ”সুন্দরবনে পরিকল্পিত অগ্নিকান্ড বন্ধ কর” ”সুন্দরবনের খালে বিষ দিয়ে মাছ নিধন বন্ধ কর”, ”বাঘ-হরিণসহ বন্যপ্রানী হত্যা বন্ধ কর”, ”সুন্দরবনে শিল্প দূষণ, প্লাস্টিক দূষণ, জাহাজী বর্জ্য দূষণ বন্ধ কর” ইত্যাদি শ্লোগান সম্বলিত প্লাকার্ড-ফেস্টুন বহন করেন।

বিকেল ৪টায় মোংলার পৌর কেন্দ্রিয় শহীদ মিনার চত্বরে ”সুন্দরবনের প্রাণ-প্রকৃতি” বিষয়ক শিশু চিত্রাংকণ প্রতিযোগিতা এবং ”বিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবন” শীর্ষক রচনা প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান হয়। বিকেল ৫টায় শহীদ মিনার চত্বরে অনুষ্ঠিত হয় ”সুন্দরবন, বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু” শীর্ষক আলোচনা সভা। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) মোংলার আহ্বায়ক পশুর রিভার ওয়াটারকিপার মোঃ নূর আলম শেখ। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন উপজেলা নির্বাহি অফিসার কমলেশ মজুমদার। বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন সহকারি কমিশনার (ভূমি) নয়ন কুমার রাজবংশী, সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজন’র সভাপতি ফ্রান্সিস সুদান হালদার, সুন্দরবন জাদুঘরের পরিচালক সুভাষ চন্দ্র বিশ্বাস, বাদাবন সংঘ’রনির্বাহি পরিচালক লিপি রহমান।

সুন্দরবন দিবসের সমগ্র অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন প্রভাষক মনোজ কান্তি বিশ্বাস ও শারমিন। আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন প্রকৃতি, নদ-নদী, পরিবেশ,বন, পাহাড়, কৃষিজমি রক্ষা করেই উন্নয়নের পথে এগোতে হবে। বক্তারা বলেন বঙ্গবন্ধু তাঁর জীবদ্দশায় সুন্দরবনের গুরুত্ব অনুধাবন করেছিলেন। তাই তিনি বলেছিলেন ”আমরা গাছ লাগাইয়া সুন্দরবন পয়দা করি নাই। স্বাভাবিক অবস্থায় প্রকৃতি এটা করে দিয়েছে বাংলাদেশকে রক্ষা করার জন্য। বঙ্গবন্ধু আরো বলেছিলেন একবার যদি সুন্দরবন শেষ হয়ে যায় তো, সমুদ্রে যে ভাঙ্গন সৃষ্টি করবে সেই ভাঙ্গন থেকে রক্ষা করার কোন উপায় আর নেই”। সুন্দরবন দিবস উপলক্ষে অন্যান্য কর্মসুচির মধ্যে ছিলো ডকুমেন্টারি এবং পোস্টার প্রদর্শনী এবং সুন্দরবনের প্রাণ-প্রকৃতি বিভিন্ন নিদর্শন উপস্থাপন।


আরো নিউজ