স্বাধীনতা দিবসের ছুটিতে সৈকতে পর্যটকদের ঢল

নিউজ ডেস্ক
দক্ষিণ বাংলা শনিবার, ২৬ মার্চ, ২০২২

মহান স্বাধীনতা দিবস ও সাপ্তাহিক ছুটিতে পর্যটন নগরী কুয়াকাটা সৈকতে ঢল নেমেছে পর্যটকের। আগত ভ্রমণপিপাসু পর্যটকরা আনন্দে মেতেছেন সৈকতের নোনাজলে। বাতাসের গতি বেড়ে যাওয়ায় বড় বড় ঢেউ আছড়ে পড়ছে তীরে। বর্ষা মৌসুমের মতো ঢেউয়ের আনন্দ পেয়েছেন আগত ভ্রমণ পিপাসুরা। আর পর্যটকের আগমনে দারুণ খুশি সৈকতের হকারসহ ব্যবসায়ীরা। তবে সৈকতের নোনাজলে গোসল করতে গিয়ে ট্যুরিষ্ট পুলিশের নির্দেশনা মানতে হচ্ছে তাদের।

কুয়াকাটা সৈকত ঘুরে দেখা গেছে, আগত ভ্রমণ পিপাসু পর্যটকরা সমুদ্রের তীরে আছড়ে পড়া ঢেউয়ের তালে তালে গোসল করছেন। মোবাইল ফোনে সেলফি তোলায় ব্যস্ত অনেকে। ওয়াটার বাইকে গভীর সমুদ্রে যাচ্ছেন কেউ কেউ। ছাতার নিচে বসে সমুদ্রের রূপ অবলোকন করছেন শিশু-বৃদ্ধরা। কেউবা আবার টিউব নিয়ে সাঁতার কাটচ্ছেন কিশোরী পর্যটকরা।

সৈকতের সবকটি পয়েন্টে পরিবার-পরিজন বা প্রিয়জনকে সঙ্গে নিয়ে দলে দলে সৈকতে নামছেন তারা। আর আনন্দে সময় পার করছেন সাগরে। আগত এ সকল পর্যটকরা সৈকতের বালিয়াড়ীতে নেচে-গেয়ে আনন্দ উন্মাদনায় মেতেছেন। এ ছাড়া গঙ্গামতি, ঝাউবাগান, শুটকি পল্লী, ফিস ফ্রাই মার্কেট, বৌদ্ধ বিহার ও ইলিশ পার্কেও পর্যটকদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। পর্যটকের এমন ভিড়ে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে। বুকিং রয়েছে অধিকাংশ হোটেল-মোটেলের ৮০ শতাংশ কক্ষ। পর্যটক আগমনে সৈকতে চাঙ্গা হয় পর্যটন ব্যবসা।

টানা ছুটিতে বিপুল সংখ্যক পর্যটক ছুটে আসায় দারুণ খুশি সৈকতের ব্যবসায়ীরা। বিশেষ করে ওয়াটার বাইক, টিউব ব্যবসায়ী, ফটোগ্রাফার ও হকাররা ব্যস্ত সময় পার করছেন। ওয়াটার বাইক চালক জাফর বলেন, পর্যটক আসলেই আমাদের ব্যবসা হয়। টানা ছুটিতে কুয়াকাটায় পর্যটক আসায় আমরা খুব খুশি। এখন ব্যবসাও ভালো হচ্ছে।

আগত পর্যটক তরিকুল ইসলাম সাগর বলেন, টানা ছুটিতে পরিবার নিয়ে কুয়াকাটায় এসেছি। দুই দিন এখানে ঘুরে ফিরে আবারও ঢাকায় ফিরব। টানা ছুটিতে পরিবারকে সময় দেওয়াই মূল উদ্দেশ্যে। খুব ভালো লেগেছে কুয়াকাটা এসে।

আরেক পর্যটক শারমিন আক্তার শিউলী বলেন, কুয়াকাটা সৈকতে ঘুরে বেশ মজা পাচ্ছি। কিছুক্ষণ নোনাজলে গোসল করছি, আবার বালিয়াড়িতে উঠে বালি নিয়ে খেলা করছি। ছুটিটা বেশ উপভোগ করছি কুয়াকাটা সৈকতে।

রফিকুল ইসলাম রফিক নামে এক চাকরিজীবী বলেন, সব সময় কর্মব্যস্ত থাকতে থাকতে ইট-পাথরের দালানে আর ভালো লাগছিল না। তাই টানা ছুটিতে সৈকতে ছুটে আসা। এখানে মুক্ত আকাশ, বিশাল সৈকত ও জলরাশি অনেক ভালো লাগছে।

ফটোগ্রাফার মিরাজ আহম্মেদ বলেন, সাপ্তাহিক ছুটির দিন ছাড়া অন্যান্য দিনগুলোতে পর্যটকদের ছবি তুলে ৫শ থেকে ৭শ টাকা আয় হয়। এখন টানা ছুটিতে পর্যটকদের ছবি তুলে দুই হাজার টাকা আয় করছি।

আবাসিক হোটেল সী-ভিউয়ের ম্যানেজার মো. সোলায়মান ফরাজী বলেন, আজও অনেক বেশি পর্যটক এসেছেন। আমার হোটেলের সবগুলো রুম বুকিং ছিল।

কুয়াকাটা ট্যুরিজম ম্যানেজমেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের (কুটুম) সাধারণ সম্পাদক হোসাইন আমির বলেন, আজ বিপুল সংখ্যক পর্যটকের আগমন ঘটেছে। পর্যটননির্ভর ব্যবসায়ীরা বেশ খুশি হয়েছে।

ট্যুরিস্ট পুলিশ কুয়াকাটা জোনের পুলিশ পরিদর্শক হাসনাইন পারভেজ বলেন, অনেক পর্যটকের আগমন ঘটেছে। কুয়াকাটার আশপাশের সবগুলো স্পটে আগত পর্যটকদের নিরাপত্তার স্বার্থে টহল জোরদার করছি।


আরো নিউজ